বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এর যৌথ উদ্যেগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালিত

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এর যৌথ উদ্যেগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালিত

রাজশাহীর মহানগরীর ZERO SOIL প্রকল্পের আওতায় বৃক্ষরোপন কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ২১ অক্টোবর ২০১৯ তারিখ দুপুর ১২ টায় বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এর যৌথ উদ্যেগে নগরীর শালবাগান এলাকার সিটি পার্কে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। উক্ত বৃক্ষরোপন কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র জনাব এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। এ  সময় উপস্থিত ছিলেন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপদেষ্টা প্রফেসর ড. এম. সাইদুর রহমান খান, উপাচার্য প্রফেসর ড. এম ওসমান গনি তালুকদার, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এর ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদ সুমন, প্রধান প্রকৌশলী মোঃ আশরাফুল হক, বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী পরিচালক মো. শামীম আহসান পারভেজ, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক পারমিতা জামান। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন রাসিকের সংরক্ষিত ওয়ার্ড ৮ এর কাউন্সিলর নাদিরা বেগম, মাননীয় মেয়রের একান্ত সচিব মো. আলমগীর কবির, পরিবেশ উন্নয়ন সৈয়দ মাহমুদ-উল ইসলামসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
 
বৃক্ষরোপণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘নগরীতে নাগরিকদের জন্য একটি উন্মুক্ত গ্রিন জোন বা পার্ক থাকা দরকার, যেখানে বড়রা হাঁটবে, বাচ্চা খেলাধূলা করবে, তারা মানসিক প্রশান্তি পাবে। এরই অংশ হিসেবে আমি প্রথম মেয়াদে মেয়র থাকাকালে এখানে কার্যক্রম শুরু করেছিলাম। কিন্তু পরবর্তী ৫ বছর আমি দায়িত্বে না থাকায় কার্যক্রম থেমে যায়। আজ বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে নতুন করে এর কার্যক্রম শুরু করছি। বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় গাছের চারা দিয়ে সহযোগিতা করায় তাদের ধন্যবাদ জানাই। তাদের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাই।’

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপদেষ্টা জনাব প্রফেসর ড. এম. সাইদুর রহমান খান এর প্রস্তাবে রাসিক মেয়র সিটি পার্কে বরেন্দ্র কর্নার দেয়ার সম্মতি প্রকাশ করেন। বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে তার প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. এম ওসমান গনি তালুকদার।  

উল্লেখ্য, সিটি পার্কে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রদত্ত প্রায় ২৫০টি গাছ গুলোর মধ্যে রয়েছে পলাশ, শিমুল, জারুল, কাঞ্চন, সোনালু, কৃষ্ণচূড়া, বকুল ও মহুয়া ইত্যাদি।