মহান শিক্ষক দিবস উপলক্ষে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রদ্ধাঞ্জলি

১৯৬৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহারের দাবি এবং সার্জেন্ট জহুরুল হক হত্যার প্রতিবাদে ১৪৪ ধারা ভেঙে সকালে রাস্তায় নামে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে পাকিস্তানি সেনারা মিছিলে গুলি করতে উদ্ধত হয়। খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন প্রক্টর ড. শামসুজ্জোহা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। ছাত্রদের সামনে দাঁড়ান। ‘ ডোন্ট ফায়ার, আই সেইড ডোন্ট ফায়ার! কোনো ছাত্রের গায়ে গুলি লাগার আগে যেন আমার বুকে গুলি লাগে।’ ছাত্রদের বাঁচাতে বর্বর পাকিস্তানি সেনাদের বন্দুকের সামনে দাঁড়িয়ে বলিষ্ঠ কণ্ঠে এভাবে চিৎকার করেছিলেন ড. শামসুজ্জোহা। এক পর্যায়ে ড. জোহা ছাত্রদের ক্যাম্পাসে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু তাতে কর্ণপাত না করে বেলা ১১টার দিকে ক্যাপ্টেন হাদী পিস্তল বের করে ড. জোহাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন। রাজশাহী নাটোর রোডে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল গেটের দক্ষিণ প¦ার্শে গুলিবিদ্ধ ড. জোহাকে বেয়োনেট চার্জ করা হয় এবং মিউনিসিপল অফিসে ফেলে রাখা হয়। পরে তিনি রাজশাহী হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ভীত রচিত হয়েছিল শহিদ ড. জোহার আত্মত্যাগের মধ্যে দিয়ে। মুক্তিযুদ্ধে প্রথম শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয় তাঁকে।
সেই ১৮ ফেব্রুয়ারিকেই মহান শিক্ষক দিবস বা জোহা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। তারই ধারাবহিকতায় গত ১৮ ফেব্রুয়ারী সকাল ৮ টায় বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় একটি শোক শোভাযাত্রা বের করে। শোভাযাত্রাটি বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা ভবন থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক দিয়ে প্রবেশ করে ড. জোহার মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তার আত্মার মাগফিরাত কামনার মধ্যে দিয়ে শেষ হয়।
শহীদ ড. শামসুজ্জোহার মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য, যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের সাবেক হাই কমিশনার এবং বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপদেষ্টা প্রফেসর ড. এম. সাইদুর রহমান খান, বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এম ওসমান গনি তালুকদার এবং রেজিস্ট্রার ড. মো. মহিউদ্দীন। উপস্থিত ছিলেন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসা প্রশাসন বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. শেখ মতিউর রহমান, আইন ও মানবাধিকার বিভাগের কো-অর্ডিনেটর প্রফেসর ড. বিশ্বজিৎ চন্দ, সিএসই বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. শহিদ উজ জামান, ফার্মেসী বিভাগের কো-অর্ডিনেটর প্রফেসর ড. একরামুল ইসলাম, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান এবং প্রক্টর ড. হাবিবুল্লাহসহ বিভিন্ন বিভাগের কো-অর্ডিনেটর,  প্রধান এবং  শিক্ষকবৃন্দ।

 

© Copyright 2021 Varendra University | Developed by IT Office, Varendra University.